শাহপরানে পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিবন্ধী যুবককে মারপিট, আসামীরা উধাও : খুঁজছে পুলিশ!

প্রকাশিত: ৩:০৪ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১৮, ২০২২

শাহপরানে পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিবন্ধী যুবককে মারপিট, আসামীরা উধাও : খুঁজছে পুলিশ!
মোঃ কামরুল ইসলাম: শাহপরান (রহ.) থানাধীন পিরেরবাজার উত্তর পিরেরচক (মন্দিরেরকোনা) এলাকায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে একটি নিরীহ পরিবারের উপর হামলা চালিয়ে মানসিক প্রতিবন্ধী এক যুবককে মারপিট করে গুরুত্বর আহত করার অভিযোগে রীতিমতো স্থানীয় থানায় মামলাও দায়ের হয়েছে।
এই ঘটনায় আহত প্রতিবন্ধী যুবকের ভাবী শিপা বেগম বাদী হয়ে শুক্রবার (১১ই মার্চ) ৪ জনকে আসামী করে শাহপরান (রহ.) থানায় অভিযোগ দায়ের করলে থানা পুলিশ সরজমিনে তদন্ত সাপেক্ষ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত হয়ে গত মঙ্গলবার (১৫ই মার্চ) আইননুসারে সংশ্লিষ্ট ধারায় আসামীদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা রুজু করেন। যাহার থানার মামলা নং- ২৩।
কিন্তু মামলা দায়েরের পর থানা পুলিশ সাড়াশি অভিযান চালালেও উধাও রয়েছেন একই থানাধীন পিরেরবাজার উত্তর পিরেরচক (মন্দিরেরকোনা) এলাকার সনজিদ আলী উরফে পাখি মিয়ার পুত্র কামাল উদ্দিন উরফে তানু মিয়া (৪০), তার মেয়ে সালমা বেগম কমলা (৪৫), মৃত মাহমদ আলীর পুএ সনজিদ আলী উরফে পাখি মিয়া (৬৫) ও তারা স্ত্রী খোদেজা বেগম (৬২)। তবে গ্রেফতারের জন্য আসামীদের খুঁজছে পুলিশ।
মামলা সুত্রে জানা যায়- আসামীগণ এলাকার মামলাবাজ প্রকৃতির লোক। আসামীগণ এলাকার চিহ্নিত মামলাবাজ পরিবার হওয়াতে আসামীগণের ভয়ে খুব নিরুপায় অবস্থায় দিনযাপন করছেন এলাকার অসহায় শত শত পরিবার। আসামীগণ বিগত কিছু দিন যাবৎ অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য বাদীর বসতবাড়ীর রাস্তা সহ একাধিক ব্যাপার নিয়ে বাদীরসহ তার পরিবারের সহিত শত্রুতা করে আসছে। তারই জের ধরে আসামীগণ তাদের অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ সহ তাদের জায়গা জবর দখলের অপচেষ্টা লিপ্ত রয়েছে। পূর্ব শত্রুতার আক্রোশে আসামীগণ জোরপূর্বক তাদের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেন। ফলে আসামীগণের নিকট হইতে তাদের পরিবার সহ শিশু বাচ্চারা ও চলাচলে বাধা গ্রস্থ ও হয়রানির স্বীকার হচ্ছে।
গত মঙ্গলবার (৮ই মার্চ) দুপুর অনুমান দেড় ঘটিকার দিকে বাদী তার দুবাই প্রবাসী স্বামীর সহিত ভিডিও কলে কথা বলাকালীন সময়ে দেখতে পান আসামীগণ তাদের জমিতে কাজ করছে তখনই তার ভিডিও কলে কথা বলার বিষয়টি আসামীগণের নজরে আসলে আসামীগণ তিনি ভিডিও করছেন বলে তার উপর ক্ষিপ্ত হয়। এক পর্যায়ে আসামী কামাল উদ্দিন উরফে তানু মিয়া ও খোদেজা বেগম তাদের হাতে থাকা লাঠি দিয়ে তাকে মারপিট করতে থাকে তখন তিনি মাটিতে লুটিয়া পড়লে আসামীগণ বিভিন্ন রকমের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে ঘটনাস্থল থেকে চলে যায়।
পরবর্তীতে শিপা বেগম আসামীগণের এহেন কার্যক্রমে নিজে ও নিজের পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে একই দিন বিকালে শাহপরান (রহ.) থানায় একখানা সাধারণ ডায়রী করেন, যাহার থানার নং- ৪৩৪। বর্তমানে বাদীর সাধারণ ডায়রীর তদন্ত কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
সর্বশেষে আসামীগণ তাদের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়রীর সংবাদ শুনে ক্ষিপ্ত হয়ে গত বৃহস্পতিবার (১০ই মার্চ) রাত অনুমান ০৮:৩০ ঘটিকার দিকে সমূহ আসামীগণ একত্রিত হয়ে শিপা বেগমকে মারধরের জন্য হামলা চালায় তখন আসামী সনজিদ আলী উরফে পাখি মিয়ার হাতে থাকা দেশীয় অস্ত্র কাঠের রোল দিয়ে শিপা বেগমের দেবর মানসিক প্রতিবন্ধী যুবকে প্রাণে হত্যার উদ্দেশ্য মাথা লক্ষ্য করিয়া আঘাত করে গুরুত্বর রক্তাক্ত জখম করে এমনকি অপর আসামীগণ সেই আহত মানসিক প্রতিবন্ধী যুবকে বেকধর কিল-ঘুষি মারে।
আহত মানসিক প্রতিবন্ধী যুবকের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে আসামীগণ এই ব্যাপারে তাদের আইনের আশ্রয় না নেওয়ার ভয়ভীতি প্রদর্শন করে চলে যায়। তাছাড়া উক্ত ঘটনার বিষয়ে স্থানীয় শাহপরান (রহ.) থানা পুলিশ জানতে পেরে সরজমিনে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আহত মানসিক প্রতিবন্ধী যুবককে চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করে। তবে মানসিক প্রতিবন্ধী যুবকের মাথায় গুরুত্বর জখম হওয়াতে বেশ কয়েকটি সেলাইও লেগেছে বলে পরিবার সুত্রে জানা গেছে।
এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহপরান (রহ.) মাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস/আই সারোয়ার হোসেন ভূইয়া সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন- আসামিদের গ্রেফতার করতে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আসামীরা এলাকা ছেড়ে উধাও রয়েছে। তবে অবিলম্বে আসামীদের গ্রেফতার করতে আমরা সক্ষম হবো বলে তিনি প্রতিবেদককে আশ্বাস প্রদান করেন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ